রামগতিতে গরুর হাটে শিক্ষক লাঞ্ছিতের ঘটনায় মামলা, কারাগারে-২

Sarwar Sarwar

Miran

প্রকাশিত: ৮:০৯ অপরাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২৪

দেশালোক:

লক্ষ্মীপুরের রামগতি বাজারের কুবরানীর ইদে গরু ক্রয় করতে গিয়ে গরু ব্যবসায়ীদের হাতে প্রাথমিক শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় মামলার প্রেক্ষিতে দুইজনকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। ভূক্তভোগী শিক্ষক মোরশেদ আলম বাদী হয়ে গরু ব্যাপারী শাহাদাত হোসেন এবং তার ভাতিজা শাকিলকে আসামী রামগতি থানায় গত ১২জুন একটি হত্যাচেষ্টা মামলা করেন। মামলায় আগাম জামিন নিতে গেলে গতকাল লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেড আদালতের বিচারক আনোয়ার হোসেন আসামীদের জামিন না-মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করেন।
মামলা ও ভূক্তভোগি সূত্রে জানা যায়, রঘুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোরশেদ আলম (৩০) গত ১১ইং জুন কুরবানীর জন্য গরু কিনতে বাজারে যান। গরু পছন্দ হওয়ায় দরদাম নিশ্চিত করে ইজারাদার থেকে খাজনা রশিদ ও সংগ্রহ করতে গেলে বিক্রেতা শাহাদাত ব্যাপারী গরু বিক্রি করতে অস্বীকৃতি জানান। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে বড়খেরী গ্রামের গরু ব্যাপারী শাহাদাত ও তার ভাতিজা খলিলের ছেলে শাকিলসহ বেশ কয়েকজন মোরশেদের উপর চড়াও হন। এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষিসহ লাঠি-সোটার হামলায় আহত মোরশেদকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করেন। শিক্ষকের উপর বর্বরোচিত হামলার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে উপজেলার শিক্ষক সমাজে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
শিক্ষক মোরশেদ আলম জানান, গত কয়েকদিন ধরে নোয়াখালীতে চিকিৎসাধীন থাকার পর কিছুটা সুস্থতা অনুভব করায় আজকে বাড়িতে আসছি। আমি এর সঠিক বিচার চাই। রামগতি উপজেলা প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক মো: মোমিন উল্যাহ জানান, একজন সহকারি শিক্ষকের উপর ন্যক্করজনক এমন হামলার তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইনের মাধ্যমে এর বিচার দাবি করছি।
রামগতি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোসলেহ উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। আসামীরা আদালতের মাধ্যমে আগাম জামিন নিতে গিয়ে না-মঞ্জুর হয়ে কারাগারে প্রেরিত হয়েছেন- এ বিষয়ে এখনো অবগত হননি তিনি।